1. info@www.fenirkantho.com : news :
বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ০৪:৫৬ অপরাহ্ন
সর্বশেষ :
ছাগলনাইয়ায় পিএফজির উদ্যোগে সভা অনুষ্ঠিত ফ্রিল্যান্সিং প্রশিক্ষণ নিয়ে স্বাবলম্বী হচ্ছে দেশের বেকার যুবকেরা বিএমইউজে ফেনীর সভাপতি এমএ সাঈদ খান, সাধারণ সম্পাদক এমএ মাসুম বিল্লাহ ভূঁইয়া পাঠাননগরে বেগম শওকত আরা পলিটেকনিক এর পথ চলা শুরু এনআরবি ব্যাংক ছাগলনাইয়া উপশাখা উদ্বোধন উদীয়মান তরুণ কবি জামশেদ খাঁনের কাব্যগ্রন্থ ” মন গহীনে জীবনের কবিতা ” বইয়ের মোড়ক উন্মোচন ছাগলনাইয়ায় আমভর্তি গাড়ি উল্টে আহত -৩ ছাগলনাইয়া বাজারকে শীঘ্রই যানজট মুক্ত করা হবে – নাসিম এমপি ছাগলনাইয়া উপজেলা পরিষদের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান হিসেবে বৃহস্পতিবার (২০ জুন) সকালে দায়িত্ব গ্রহণ করছেন মিজানুর রহমান মজুমদার। প্রাণে প্রাণে আবেগ ও উচ্ছাস প্রাক্তন ছাত্রদের পুনর্মিলনীতে

ফেনীর ছাগলনাইয়ায় দুবাই প্রবাসী ফয়সাল এর বিরুদ্ধে প্রতারনা ও টাকা আত্মসাতের অভিযোগ এনে প্রবাসী টিটুর সংবাদ সম্মেলন।

মোঃ শাহ ফয়সাল
  • প্রকাশিত: রবিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০২৩
  • ৩৪৬ বার পড়া হয়েছে

ফেনীর ছাগলনাইয়া দুবাই প্রবাসী প্রতারক এনামুল হক ফয়সালের বিরুদ্ধে প্রতারনা ও টাকা আত্মসাতের অভিযোগ ছাগলনাইয়ার প্রবাসী তোফাজ্জল হোসেন টিটুর সংবাদ সম্মেলনে ঘটনার বিবরণে জানা যায় ফয়সাল ফেনী সদর উপজেলার ফাজিলপুর ইউনিয়নের শিবপুর গ্রামের ৩নং ওয়ার্ডের আবদুস সোবহান সওদাগর বাড়ীর আজিজুল হকের পুত্র এবং দুবাইয়ের গ্রামীন জুয়েলার্সের মালিক। আর টিটু ছাগলনাইয়া উপজেলার পাঠাননগর ইউনিয়নের পূর্ব হরিপুর গ্রামের মোশাররফ হোসেন মিলনের পুত্র।সোমবার বিকেলে স্থানীয় সিএফসি রেস্টুরেন্টে টিটু ছাগলনাইয়ায় স্হানীয় সাংবাদিকদের জানান,
ফয়সালের নানার বাড়ী তার এলাকায় সম্পর্কে সে ভাগিনা।ছোট বেলা থেকেই ফয়সালের সাথে টিটুর সম্পর্ক ছিল।দুবাইতে ২/৩জনের পার্টনারে ফয়সালের স্বর্ণের দোকান রয়েছে। ২০২০ সালে টিটু দুবাই যান।এক পর্যায়ে সম্পর্ক গভীর হওয়ায় ফয়সালের গ্রামীণ জুয়েলার্সে টাকা জমা রেখে দেশে আসার সময় স্বর্ণ ক্রয় করে নিয়ে আসতেন।এছাড়াও দুবাইয়ে তার মামা ও ভাই রয়েছে। তারাও দেশে আসার সময় টিটুর স্বর্ণগুলো আনতো।এভাবে প্রায় দেড় বছর ব্যবসা ও লেনদেন চলছিল। টিটু বলেন,হঠাৎ ফয়সাল আমার একাউন্ট বন্ধ করে আমার সাথে যোগাযোগ বন্ধ করে দেয়।তার কাছে আমার দেড় লাখ দেরহাম বাংলা ৪৫ লাখ টাকা ছিল।সে আমার জমাকৃত টাকা অস্বীকার করায় আমি দুবাইয়ে গিয়ে পাওনা টাকা ফেরত চাওয়ায় সে বিভিন্ন অজুহাত দেওয়া আরম্ভ করে আমাকে এনিয়ে বেশী বাড়াবাড়ি করতে নিষেধ করে এবং নানা ভয়ভীতি প্রদর্শন করে। বিষয়টি তার মা বাবা ও আত্মীয় স্বজনদের জানালে তারা বলে বিদেশেের লেনদেন বিদেশেই সমাধান করতে।ফয়সাল তার স্ত্রী সন্তানদের নিয়ে দুবাইয়ে থাকেন।টিটু তার পাওনা টাকা ফেরত ফেতে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রযুক্তি সহায়তায়: বাংলাদেশ হোস্টিং